ঘটনাবলী (Events)

a

রাজস্ব বিষয়ক সংলাপ।

ইভেন্ট তারিখ: 17/04/2016

পাবলিশ তারিখ: 23-08-2016


AIP ও BIP এর নির্দেশনা অনুসরণ পূর্বক জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এর অনুসৃত 5C’s, 5F’s, 5I’s এবং QQTTT এর আদর্শ দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এর ১৭/০৪/২০১৬ খ্রিঃ তারিখের স্মারক নং-০৮.০১.০০০০.০২৭.১৬.০০১.১৬(অংশ-৩)/৪৯০ এ উল্লেখিত নির্দেশনার আলোকে কর অঞ্চল-৪, চট্টগ্রাম এর কর কমিশনার জনাব মোঃ মোতাহের হোসেন এর একটি প্রতিনিধি দল অতিরিক্ত কর কমিশনার জনাব মুহাম্মদ মফিজ উল্যা’র নেতৃত্বে গত ১৪ মে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আবদুর রহমার বদি এম.পি এর সাথে তার বাসভবনে সাক্ষাৎ করেন। সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত উক্ত সাক্ষাতে দেশ গঠনে জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রত্যক্ষ করের তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকার আলোকে করনেট সম্প্রসারণসহ যথাযথভাবে উৎস কর কর্তন/সংগ্রহের সহযোগিতা, কর জরীপ বাস্তবায়নের সফল বাস্তবায়ন, উপজেলা পর্যায়ে আয়কর অফিস স্থাপনের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় জমি বরাদ্দ এবং আয়কর মেলা উদযাপনের উপর ব্যাপক আলোচনা হয়। জনাব মুহাম্মদ মফিজ উল্যা মাননীয় সাংসদের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করে উখিয়া-টেকনাফ উপজেলার ১১ (এগারো) টি ইউনিয়নের মোট জনসংখ্যা ৪ লক্ষের বিপরীতে রেকর্ডভূক্ত করদাতার সংখ্যা ৩৩৫৪ জন এর উপর আলোকপাত করেন। তিনি বলেন মোট জনসংখ্যার তুলনায় করদাতার সংখ্যা অতি নগন্য। এছাড়াও কর প্রদানের অতি সামর্থ্যবান এ অঞ্চলের অর্ধ লক্ষাধিক জনগন অজ্ঞতার কারণে সক্ষমতা সত্ত্বেও নিজেদের করনেটের বাইরে রাখছেন। এতে করে একদিকে সরকার তার রাজস্ব হারাচ্ছে এবং অন্যদিকে জাতীয় মোট সংগৃহীত রাজস্বের মধ্যে উখিয়া-টেকনাফ তার প্রত্যাশিত ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হচ্ছেন। এ প্রেক্ষিতে কর বিভাগ কর্তৃক কর জরীপ কার্যক্রমের পূর্বেই ইউনিয়ন পর্যায়ে স্ব স্ব চেয়ারম্যান কর্তৃক কর নেটের বাইরে থাকা সামর্থ্যবানদের জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রত্যক্ষ করের ভূমিকার বিষয়ে উদ্ধুব্দকরণের প্রয়োজনীয়তার কথা বলা হয়। অতিরিক্ত কর কমিশনার জনাব মুহাম্মদ মফিজ উল্যা ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরের জন্য উখিয়া-টেকনাফ অধিক্ষেত্র সার্কেল-৮৭(টেকনাফ) এর বাজেট লক্ষ্যমাত্রা ২০ কোটি টাকা আদায়ে মাননীয় সাংসদের সহযোগিতা কামনা করেন। মাননীয় সাংসদ জাতীয় রাজস্ব আহরণের জন্য তার সর্বাত্বক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। তিনি তার উপজেলার মধ্যে কর দেয়ার সক্ষমতা থাকলেও অনেকে যে করনেট ভুক্ত নন সে বিষয়ে অবগত বলে জানান। এজন্য তিনি জরুরি ভিত্তিতে জরীপ কার্যক্রম এর ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অতিরিক্ত কর কমিশনার জনাব মুহাম্মদ মফিজ উল্যাকে অনুরোধ করেন এবং জরীপ কার্যক্রমে সৃষ্টতব্য যে কোন অসুবিধার সম্মুখীন হলে সরাসরি তাকে জানানোর জন্য অনুরোধ করেন। জনাব সাংসদ বলেন স্বনির্ভর বাংলাদেশ বিনির্মাণে আয়করের কোন বিকল্প নেই। তার উপজেলায় আয়কর অফিস স্থাপনের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় জমি বরাদ্দ চেয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে চিঠি প্রেরণের কথা বলেন। উক্ত মতবিনময় সভায় কক্সবাজার সার্কেলের সহকারী কর কমিশনার জনাব জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমা এবং কর পরিদর্শক জনাব মোঃ সাইফুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও র্বিশিষ্ট আয়কর আইনজীবি এ্যাডভোকেট মো. ছৈয়দুল হক, বিশিষ্ট আয়কর আইনজীবি জনাব মো. আহসান উল্লাহ এবং স্থানীয় ব্যবসায়িক প্রতিনিধিসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।